Home » এক নজরে » গর্ভবতী মায়ের গর্ভকালীন যত্ন (প্রথম খণ্ড)

গর্ভবতী মায়ের গর্ভকালীন যত্ন (প্রথম খণ্ড)

pregnancy-mother

গর্ভকালীন যত্ন

গর্ভকালীন যত্ন কনটেন্টটিতে গর্ভবতী মায়ের লক্ষণ, গর্ভকালীন যত্ন, গর্ভকালীন যত্নের উদ্দেশ্য, গর্ভকালীন যত্নের কার্যাবলী, বাড়িতে কীভাবে গর্ভবতীর যত্ন নেয়া যায়, গর্ভবতীর খাবার, গর্ভবতী অবস্থায় করণীয়, গর্ভবতী অবস্থায় যা করা যাবে না, গর্ভকালীন প্রয়োজনীয় ৪ টি ব্যবস্থা, গর্ভাবস্থায় ও প্রসবের সময় ৫ টি বিপদ চিহ্ন, স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গর্ভকালীন কি কি সেবা দেয়া হয়, চিকিৎসা ও সেবা প্রদানের স্থান এসব বিষয়ে বর্ণনা করা হয়েছে।

গর্ভকালীন সময়ে মায়ের চাই বিশেষ যত্ন। মহিলাদের গর্ভধারনের পূর্বেই নিজের স্বাস্থ্য, গর্ভধারণ ও সন্তান পালন সংক্রান্ত বিষয়ে সচেতন হওয়া দরকার। কারণ একজন সুস্থ্য মা-ই পারে একটি সু্স্থ ও স্বাভাবিক শিশুর জন্ম দিতে। তাই গর্ভবতী মায়ের জন্য প্রয়োজন সঠিক যত্ন ও পরিচর্যা। গর্ভকালীন যত্ন বাংলাদেশে মাতৃমৃত্যুর হার কমাতে বিশেষ ভাবে সাহায্য করতে পারে।

গর্ভবতী মায়ের লক্ষণ

  • মাসিক বন্ধ থাকা
  • বমি বমি ভাব
  • স্তনে ব্যথা

গর্ভকালীন যত্ন

সমগ্র গর্ভকালীন সময়ে অর্থাৎ ঋতুস্রাব বন্ধ হওয়া থেকে শুরু করে ৯ মাস ৭ দিন ব্যাপী মাঝখানে গর্ভবতী মা ও তার পেটের সন্তানের যত্ন নেওয়াকে গর্ভকালীন যত্ন বলা হয়। নিয়মিত পরীক্ষা এবং উপদেশ প্রদানের মাধ্যমে এটি পরিচালিত হয়। সমগ্র গর্ভকালীন সময়ে কম পক্ষে ৪ বার পরীক্ষা করা প্রয়োজন।

যেমন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সুপারিশ অনুযায়ী

  • ১ম ভিজিটঃ ১৬ সপ্তাহ (৪ মাস)
  • ২য় ভিজিটঃ ২৪-২৮ সপ্তাহ (৬-৭ মাস)
  • ৩য় ভিজিটঃ ৩২ সপ্তাহ ( ৮ মাস)
  • ৪ র্থ ভিজিটঃ ৩৬ সপ্তাহ ( ৯ মাস)

গর্ভকালীন যত্নের কার্যাবলী

  • মায়ের কোন অসুখ থাকলে তা নির্ণয় করা এবং তার চিকিৎসা করা যেমন-গর্ভাবস্থায় রক্তক্ষরণ, প্রি-একলাম্পশিয়া বা একলাম্পশিয়া এবং বাঁধাপ্রাপ্ত প্রসবের পূর্ব ইতিহাস।
  • মা যাতে গর্ভকালীন সময়ে নিজের যত্ন নিতে পারেন, আসন্ন প্রসবের জন্য নিজে তৈরী হতে পারেন এবং নবজাত শিশুর যত্ন নিতে পারেন তার শিক্ষা দেয়া।
  • গর্ভাবস্থায় জটিল উপসর্গগুলি নির্ণয় করা। এর ব্যবস্থাপনা করা যেমন- রক্ত স্বল্পতা, প্রি-একলাম্পশিয়া ইত্যাদি।
  • ঝুকিপূর্ণ গর্ভ সনাক্ত করা।
  • উপদেশের মাধ্যমে মাকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করা, রক্তস্বল্পতা, ম্যালেরিয়া এবং ধনুষ্টংকারের প্রতিরোধক ব্যবস্থা নেয়া।
  • নিরাপদ প্রসব বাড়ীতে না স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কোথায় সম্ভব হবে তা নির্বাচন করা।
  • প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত কর্মীর ব্যবস্থা করা।
  • সকল গর্ভবতী মায়ের রেজিষ্ট্রেশন করা।

গর্ভকালীন যত্নের উদ্দেশ্য

গর্ভকালীন যত্নের প্রধান উদ্দেশ্য হলো গর্ভবতী মাকে মানসিক ও শারীরিকভাবে সুস্থতার মাঝে তৈরী করে তোলা যাতে তার প্রসব স্বাভাবিক হয়, তিনি যেন একটি স্বাভাবিক সুস্থ শিশু জন্ম দেন, সন্তানকে বুকের দুধ দিতে পারেন এবং সন্তোষজনকভাবে তার এবং শিশুর যত্ন নিতে পারেন।

বাড়িতে কিভাবে গর্ভবতীর যত্ন নেয়া যায়

  • সকল গর্ভবতীকে হাসি খুশি রাখা
  • গর্ভবতী মাকে একটু বেশী খেতে দেয়া
  • খাবার যাতে সুষম হয় সে দিকে লক্ষ্য রাখা
  • বেশী করে পানি খেতে বলা
  • পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের মাধ্যমে সহায়তা দেয়া
  • পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে বলা
  • তাকে মানসিকভাবে প্রস্তুত রাখা
  • গর্ভবতী মা অসু্‌স্থ হলে তাড়াতাড়ি স্বাস্থ্য কর্মী বা ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া

গর্ভবতী মায়ের খাবারের তালিকা

শক্তিদায়ক খাবারঃ 

  • ভাত, রুটি/পরাটা, আলু, চিনি, গুড়, সুজি
  • সয়াবিন তেল, বাদাম, কলিজা
  • ঘি/মাখন, ডিমের কুসুম ইত্যাদি

শক্তি ক্ষয়পূরণ এবং নবজাতকের শরীর বৃদ্ধিকারক খাবারঃ

  • মাছ, মাংস, দুধ, ডিমের সাদা অংশ
  • বিভিন্ন ধরনের ডাল, মটরশুটি, সীমের বীচি ইত্যাদি

শক্তি রোগ প্রতিরোধক খাবারঃ

  • সবুজ, হলুদ ও অন্যান্য রঙ্গিন শাক-সবজি
  • সবধরনের মৌসুমী ফল-মূল

গর্ভবতী মা কি খাবেন এবং কি পরিমাণ খাবেন

  • প্রতিদিন তিন ধরণের খাবারের তালিকা থেকেই কিছু কিছু খাবার খেতে হবে।
  • প্রতিবেলায় স্বাভাবিকের চেয়ে একটু বেশী খেতে হবে।
  • গভর্বতী মাকে বেশী করে পানি খেতে হবে
  • আয়োডিনযুক্ত লবণ তরকারীর সাথে খেতে হবে। তবে অতিরক্ত লবণ খাওয়া যাবে না।

##গর্ভবতী মায়ের গর্ভকালীন যত্ন (দ্বিতীয় খণ্ড)

##গর্ভবতী মায়ের গর্ভকালীন যত্ন (তৃতীয় খণ্ড)

 

Facebook Comments
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.